নশ্বর পৃথিবীতে মরণের  স্বাদ সবাই পায়, জীবনের স্বাদ পায় অল্প কয়েকজন । ভেবে দেখুন তো ২০১৮  সালের পুরো বছরটি আপনার  জীবনে কী যোগ করলো ? নতুন কিছু কি আপনি আপনার  মধ্যে যোগ করতে পেরেছেন? ক্যালেন্ডার এর পাতা বদলানোর সাথে সাথে আপনি  কি একটু একটু করে বদলাচ্ছেন? আপনাকে যদি বলা হয় –“হাত তুলুন যদি আপনিও বছরের বারটি  মাস সাফল্যের সঙ্গে নষ্ট করে থাকেন”- আপনি হয়তো হাসি মুখেই হাত তুলবেন। কিন্তু বিশ্বাস করুন এতে হাসির কিছুই নেই, বরং আপনার যদি ন্যূনতম অনুশোচনা হয় তবে বলা যেতে পারে আপনি মোটামুটি সঠিক ট্র্যাকেই আছেন। চলুন নিজের সাথে নিজে কমিটমেন্ট করি যে  ২০১৯ সালটি আমার জন্য ফলপ্রসূ হবে।

কিন্তু নতুন বছরে আপনার  পদক্ষেপ যদি আগের মতই থাকে, তবে নতুন বছরটি আপনার জন্য আগের মতই হাঁ হুতাশ ছাড়া কিছুই নিয়ে আসবে না। সেই নতুন পদক্ষেপের গতিকে ত্বরান্বিত করতে প্রযুক্তি হতে পারে বিশাল এক অনুঘটক। চলুন জেনে নেয়া যাক জীবনকে গোছানোর কিছু অনুঘটকের  নাম।

১। Google Keep:

আমরা আমাদের দৈনন্দিন জীবনে কত শত ঘটনার সম্মুখীন হই, তাইনা? এর মধ্যে থেকে কিছু ঘটনার বা বিষয়ের নোট রাখার তাগিদ মনে করলেও অনেকেই কলম, পেন্সিল বা সঠিক উপকরণ না পাওয়ায় সেই ব্যাপারটি নোট করা বা টুকে রাখা হয়না, ফলে এক সময় আমরা এভাবে অনেক কিছুই ভুলে যাই। এছাড়াও এভাবে টুকে না রাখার ফলে কিন্তু আমাদের অনেক সময়ই অনেক গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্ট বা বিষয় অনিচ্ছাকৃত ভাবে মিস করতে হয়। এই সমস্যার সমাধান হিসেবে গুগল আমাদের জন্য তৈরি করেছে গুগল কিপ, সব কিছু রেখে দিতে পারবেন এখানে আপনি। ছবি, নোট, মেমো – সব। এছাড়াও গুগলের এই কিপ ভয়েস মেমোর সুবিধাও দিয়ে থাকে।
২। Google calendar:

এমন যদি হতো কেউ আপনাকে এসএমএস বা ইমেইলের মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ  মুহুর্তগুলোকে আগে ভাগেই জানিয়ে দিতো তাহলে কেমন হতো! গুগল ক্যালেন্ডার আপনার এসব ইভেন্টগুলো নির্দিষ্ট সময়ের আগেই আপনার মোবাইলে এসএমএস করে, ইমেইল করে বা পপ আপ হিসাবে মনে করিয়ে দেবে।


৩. Last Pass
সব কিছুতেই একটি পাসওয়ার্ড ব্যবহার করার অসুবিধা নতুন করে বলার কিছু নেই। কিন্তু এত এত অ্যাপস আর সামাজিক মাধ্যমের ভিড়ে আলাদা আলাদা পাসওয়ার্ড দেয়া,  মনে রাখা অনেক ঝামেলার কাজ এবং সাথে গুরুত্বপূর্ণ কারণ Security এর ব্যাপারটা ছাড় দেবার কোন উপায় নেই । আপনার এই কাজটিই সহজ করে দিবে LastPass। এই অ্যাপস দিয়ে আপনি পাসওয়ার্ড বানাতে পারবেন, সংরক্ষণ  রাখতে পারবেন।
৪. Google drive:

গুগল ড্রাইভ হচ্ছে গুগলের ফ্রী স্পেস সার্ভিস যার মধ্যে আপনি আপনার সকল প্রয়োজনীয় ফাইল সমূহ, প্রেজেন্টেশনস, ছবি, ভিডিও ক্লিপসহ আরো অনেক কিছু নিরাপদে সংরক্ষন করতে পারবেন এবং অন্যদের শেয়ার করতে পারবেন। প্রয়োজনে পরিবর্তন, পরিবর্ধন, সংযোজন- বিয়োজন করে পুনরায় সংরক্ষন করতে পারবেন। গুগল ড্রাইভ আপনার একটি নিরাপদ ও একান্ত ব্যক্তিগত ফাইল কেবিনেট হিসাবে কাজ করবে। আপনি বিশ্বের যে প্রান্তেই থাকেন না কেন, সেখানে বসেই আপনি একসেস করতে পারবেন যেকোন কম্পিউটার, মোবাইল, আইফোন সহ অন্যান্য ডিভাইসের মাধ্যমে। প্রয়োজনে প্রিন্ট ও নিতে পারবেন।


৫। Pocket:

হয়ত আপনি খুব ব্যাস্ততার মধ্যে মোবাইল স্ক্রল করছেন, চোখ আটকে গেল খুব দরকারি কোন আর্টিকেল এর দিকে। কিন্তু সময় নেই এই মুহূর্তে এটা পড়ার কিংবা এই সময়ে আপনি তা পড়তে চাচ্ছেন না। তাহলে উপায়? উপরের অ্যাপসটি দিয়ে আপনি সহজেই  ভবিষ্যতের  জন্য তা  সংরক্ষন করে রাখতে পারবেন। অফলাইন মোডেও এটা কাজ করে। সংরক্ষণের এই ব্যাপারটি হতে পারে  picture, video, web page এর জন্য। তার মানে প্রয়োজনীয় লিঙ্ক আপনি বুকমার্ক করে রাখতে পারবেন।