আমরা আমাদের কল্পনাতে যেমন শহরের কথা চিন্তা করি বাস্তবতার সাথে তার কোন মিল কি আমরা খুজে পাই? আমরা চিন্তা করি আমাদের শহরে থাকবেনা যানজট, দূষণ, আবর্জনার স্তুপ। কিন্তু কল্পনাতে যেটা চিন্তা করি থাকবেনা বাস্তবে সেইটাই দৃশ্যমান।  আমরা আমাদের ভবিষ্যৎ ঢাকা শহরকে কেমন দেখতে চাই,  কিভাবে আমাদের শহরটাকে সাঁজাতে চাই, এটা সহজ কোন চিন্তা নয়। ঢাকা শহর, এখানে বর্তমান Population প্রায় কোটি, জনসংখ্যার সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে দালানকোঠা, যানবাহন। ঢাকা শহরে যে হারে যানবাহনের সংখ্যা বাড়ছে সে ভাবে বাড়ছে না রাস্তা এবং পার্কিং ব্যবস্থা। এর ফলে পরিবেশের যেমন ক্ষতি হচ্ছে তেমন জনজীবন বিপর্যস্ত হচ্ছে দিন দিন। তাই, আমরা যদি ঢাকা শহরকে বাসযোগ্য শহর হিসেবে দেখতে চাই, তাহলে আমাদেরকে শহরের Traffic jam এবং Pollution নিয়ে চিন্তা করতে হবে। আমরা জানি যানজটের সাথে দূষণ ওতপ্রোতভাবে জড়িত। আমাদের এই যানজট নিরসনের আশু সমাধান হতে পারে স্মার্ট কার পার্কিং সিস্টেম যার মাধ্যমে আমরা আমাদের শহরের যানজট এবং দূষণ উভয়ই কমিয়ে বদলে দিতে পারি আমাদের শহর।

স্মার্ট কার পার্কিং সিস্টেম যেভাবে বদলে দিতে পারে আমাদের ঢাকা শহরঃ

জায়গার যথাযথ ব্যবহারঃ

যে কোন শহরে সঠিক উপায়ে জায়গার যথাযথ ব্যবহার একটি বড় ধরনের Challenge। ঢাকা শহরের ছড়ানো ছিটানো গাড়ি গুলোকে যদি পার্কিং এর আওতায় এনে সুশৃঙ্খল ভাবে রাখা যায় তাহলে জায়গার যেমন যথাযথ ব্যবহার হবে তেমন যানজট কমে আসবে আশানরুপ ভাবে। আপনি একবার ভাবুনতো এলোমেলো ভাবে যত্রতত্র গাড়ি রাখা হয়েছে রাস্তার পাশে কিংবা অফিসের সামনে, অপরদিকে  কোন একটি বিল্ডংএ সম্পূর্ণ Modern technology ব্যবহার করে গাড়ি গুলো শৃঙ্খল ভাবে  পার্কিং করে রাখা হয়েছে, যেখানে গাড়ি চুরির কোন ভয় নেই, অতিরিক্ত লোকের প্রয়োজন নেই, শুধু এই নয় জায়গার ব্যবহার হচ্ছে প্রোপারলি। ভাবতে পারেন এই দুইটি চিত্রের মধ্যে কতটা পার্থক্য?

পরিবেশের উন্নয়ন সাধনঃ 

ঢাকা শহর, যেখানে মুক্ত ভাবে নিঃশ্বাস নেওয়া কষ্টকর! কিন্তু এই বাতাস, এ পরিবেশ আমরা চাই না, আপনিও নিশ্চয়ই চান না? আমরা কেউই তা চাই না। কিন্তু এটা করতে হলে আমাদের প্রয়োজন দেশের প্রচলিত নিয়ম মেনে পার্কিং করা। Traffic law মেনে সঠিক স্থানে পার্কিং না করে  অনেকে অফিসের সামনে, রাস্তার পাশে গাড়ি পার্ক করে রাখছে। যার ফলে বৃদ্ধি পাচ্ছে যানজট। দীর্ঘ সময় যানজটের ফলে গাড়ি থেকে নির্গত কালো ধোয়া এবং অনবরত হর্ন বাজানোর ফলে পরিবেশ ব্যাপক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এই সকল সমস্যার সমাধান হিসেবে কাজ করবে স্মার্ট কার পার্কিং সিস্টেম। স্মার্ট কার পার্কিং মাধ্যমে পার্কিং ব্যবস্থায় শৃঙ্খলা আসবে বলে আমরা মনে করি। পার্কিং ব্যবস্থা সহজলভ্য হলে রাস্তার দুই পাশে, অফিসের সামনে গাড়ি পার্ক করা থাকবে না। যার ফলে রাস্তার যানজট কমে আসবে এবং পরিবেশের উন্নয়ন ঘটবে।

যানজট হ্রাসে ভুমিকাঃ  

যানজট নিরসনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে স্মার্ট কার পার্কিং সিস্টেম। যানজটে নাকাল শহরবাসী। যানজট যেন সকল মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে, এর প্রভাব পড়ছে স্বাস্থ্য, অর্থনীতি সহ অনেক বিষয়ে। যানজটের কারণে শুধু ঢাকায় দৈনিক ৫০ লাখ কর্মঘণ্টা নষ্ট হচ্ছে। যার আর্থিক ক্ষতি বছরে প্রায় ৩৭ হাজার কোটি টাকা। আপনি কি জানেন এই যানজটের কারণ হিসেবে রাস্তার পাশে করা পার্কিং কতটা দায়ী? আপনি একটু লক্ষ্য করলেই দেখতে পাবেন ঢাকা শহরের প্রতিটা ব্যস্ত রাস্তার প্রায় ( ১ তৃতীয়াংশ) জায়গা দখল করে রেখেছে এই Illegal parking।  এই সমস্যার সমাধানের জন্য আমাদের প্রয়োজন নিয়ম মেনে পার্কিং এর  ব্যবস্থা করা।

নিরাপত্তার নিশ্চয়তাঃ

ধরুন, আপনি আপনার শখের দামী গাড়িটি একটা রাস্তার পাশে পার্কিং করে কোন মার্কেট বা অফিসে কাজ করছেন, সে ক্ষেত্রে আপনি কি নিশ্চিন্ত থাকতে পারেন?  না, নিশ্চিন্ত থাকা সম্ভব না। কিন্তু স্মার্ট কার পার্কিং নিরাপত্তার নিশ্চয়তা প্রদান করে শতভাগ। প্রচলিত পার্কিং ব্যবস্থায় Security এর কোন ব্যবস্থা নেই। কিন্তু স্মার্ট কার পার্কিং সেবায় নিরাপত্তা ১০০%। কারণ স্মার্ট কার পার্কিং এ ব্যবহার করা হয়েছে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি। পার্কিং স্লটে  প্রবেশ, প্রস্থান এর  জন্যে রয়েছে লগিন কার্ডের ব্যবস্থা। এই লগ ইন কার্ড পাঞ্চ করা মাত্র ব্যারিয়ার উঠে যাবে। এই কার্ড ব্যবহার করে শুধুমাত্র Registered/ কার্ডধারি ব্যক্তি পার্কিং এ গাড়ি ইন কিংবা আউট করতে পারবে। যার  ফলে এখানে গাড়ি চুরির ভয় নেই একেবারেই। তাই Car parking করে কোন চিন্তা করতে হবে না।

শহরের সৌন্দর্য বৃদ্ধিঃ

ঢাকা শহরে রাস্তার দুই পাশে তাকালে অবৈধ পার্কিং চোখে পরে অহরহ, যার ফলে শহর তার সৌন্দর্য হারাচ্ছে এবং রাস্তা সংকোচনের ফলে রাস্তায় যানজট বেড়েই চলছে। কিন্তু Smart car parking system শহরের প্রতিটা ব্যাস্ত এলাকায়,মার্কেট, বা প্রতিষ্ঠানে স্থাপন করা হলে  একটি শহরেরে চিত্র পাল্টে যেতে সময় লাগবে না। যখন রাস্তার দুইপাশ, অফিস বা কোন প্রতিষ্ঠানের  সামনে কোন অবৈধ পার্কিং থাকবেনা, এবং  প্রতিটা প্রতিষ্ঠানে স্মার্ট পার্কিং স্থাপন করা হয় তাহলে বর্তমান দৃশ্য পাল্টে এক নতুন রুপে ধরা দিবে আমাদের শহর। তাই স্মার্ট কার পার্কিং শহরের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে কাজ করবে।

একটি যানজটমুক্ত, দূষন মুক্ত, নিরাপদ শহরেরে কথা আমরা সকলেই চিন্তা করি। যেখানে আমরা সকলে  মুক্তভাবে নিঃশ্বাস নিতে পারব। এর জন্য শহরের যানজট এবং দূষণ কমিয়ে নিয়ে আসতে হবে শূন্যের কোঠায়। সমস্যার Solution  খুজে সিদ্ধান্ত নিতে হবে দ্রুত, সিদ্ধান্ত আপনার হাতে।