বর্তমান পৃথিবীতে পরিবর্তনই মনে হয় একমাত্র স্থায়ী সত্য। পরিবর্তনের এই দর্শন সবখানে স্থায়ী ভাবে শিকড় গেড়েছে । তারই ধারাবাহিকতায় ‘চাকরিটা আমি পেয়ে গেছি বেলা শুনছো’ এই গানটা যেন আজ তার আবেদন একটু হারাতে বসেছে।একটু বেমানান হয়ে ধরা দিয়েছে। তার পরিবর্তে ‘চাকরিটা আমি দিতে পারি বেলা শুনছো’ এই গানটাই যেন ঠিক মানিয়ে যায় সমস্ত গতানুগতিকতাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে।

বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার ৬০% এর বয়স ২৫ এর মধ্যে। কিন্তু আমাদের দেশের তরুণরা বিশ্বের অন্যান্য উন্নত বা উন্নয়নশীল দেশের তরুণদের মত পড়াশুনা শেষে বিশ্বভ্রমনে যায়না। গড়পড়তা একটা চাকরি জুটানোর চিন্তাই তাদের স্বাভাবিক জীবন যাপনে বাঁধা হয়ে দাড়ায়। কিন্তু সময় এসেছে এখন এই বস্তাবন্দী গতানুগতিক চিন্তা চেতনা থেকে বেরিয়ে আসার। তারুন্যের এই বিশাল হতাশাগ্রস্ত মিছিলকে নতুন আলোর পথ দেখাতে হবে। জনসংখ্যার বিশাল এই অংশকে জনশক্তিতে রূপান্তরিত করার জন্য উদ্যোক্তা হবার সুফল দুই হাতে গুনেও শেষ করা যাবেনা। বাংলাদেশে উদ্যোক্তাদের সফল হবার গল্প আছে ভুরি ভুরি। অন্যরকম গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা মাহমুদুল হাসান সোহাগ , বিকাশের প্রতিষ্ঠাতা কামাল কাদির, BDjobs.com এর ফাহিম মাশরুর, Akhoni.com  সাইটের শামীম আহসান হতে পারে আমাদের সামনে জ্বলন্ত উদাহরণ। পুরুষদের পাশাপাশি আমাদের দেশে নারি উদ্যোক্তারাও পিছিয়ে নেই। বাংলাদেশে বর্তমানে ২৩ লাখ নারী এসএমই উদ্যোক্তা রয়েছেন। এদের প্রতিজনের বছরে গড়ে টার্নওভার (মোট বিক্রি) ১৬ লাখ টাকা। এই বিক্রি থেকে একজন গড়ে ২ লাখ ৭০ হাজার টাকা মুনাফা করে থাকেন।

তবে একথা সত্যি যে একজন সফল উদ্যোক্তা  হওয়া যথেষ্ট চ্যালেঞ্জিং । সবাই দিনশেষে সফল হয় না। একজন সফল উদ্যোক্তা হবার জন্য আপনাকে নিচের বিষয়গুলি মাথায় রাখতেই হবে।

প্রচুর গবেষণা করুন :

বর্তমান পৃথিবীর চরম প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশের সাথে খাপ খাওয়াতে আপনাকে চোখ কান খোলা রাখতে হবে।  পৃথিবীর সফল উদ্যোক্তাদের উপরে প্রচুর পড়াশুনা করুন। আপনি যে ব্যবসা নিয়ে সামনে এগোতে  চান , তা নিয়ে বিস্তর জানা আবশ্যক। আপনি যত জানবেন, আপনার সফলতার গল্পটা তত ত্বরান্বিত হবে।

ব্যবসা শুরু করুন মাথা থেকে , মন থেকে নয় :

আবেগকে কোন ভাবেই প্রশ্রয় দিবেন না কিংবা দ্রুত টাকা আয়ের চিন্তা মাথা আনবেন না। সুদূরপ্রসারী চিন্তা করুন। লক্ষ্য স্থির করুন। নিজেকে প্রশ্ন করুন আগামি পাঁচ বছরে নিজেকে কোথায় দেখতে চান।

ধৈর্যশীল হন:  

সফলতার জন্য ধৈর্য খুব কমন একটা দর্শন। ধৈর্যকে কোন ভাবেই এড়িয়ে যাওয়া যায় না। উদ্যোক্তা হিসেবে আপনি কাজ করবেন এবং উন্নতি করবেন কেবলি আপনার দক্ষতার উপর ভিত্তি করে। দক্ষতা অর্জনের জন্য যথেষ্ট সময় দিন। লেগে থাকুন।

সেরাটা দিন:

সর্বোত্তম এ বিশ্বাস করুন। মুনাফা এমনেই আসবে। পন্যের পাশাপাশি আপনার সেরাটাও আপনাকে দিতে হবে। সৃজনশীলতার পরিচর্যা করুন। সৃজনশীলতার আরেক নাম পরশপাথর।

প্রতিটা পদক্ষেপ বুঝে শুনে নেন: 

বিশেষ করে অনলাইন এ ব্যবসা করতে হলে  এই কথাটা খুবই সত্য। আপনি যদি দীর্ঘ মেয়াদে টিকে থাকতে চান ভালো কর্মী গঠনে, ভালো ওয়েবসাইট তৈরিতে এবং লাভ হবে এমন অনলাইন বিজ্ঞাপনে খরচ করতে হবে। সুনির্দিষ্ট ব্যবসায়িক পরিকল্পনা আপনার থাকতে হবে। হিসাবী হবার চর্চাটা আপনাকে আজ থেকেই শুরু করতে হবে। অর্থ এবং সময় , দুই দিক থেকেই।

পুঁজি এবং প্রশিক্ষণ:  

মনে প্রানে আপনি যদি একজন সপ্নবাজ তরুন হন, পুঁজি আপনার জন্য কোন অজুহাতই না।  পুঁজি মিলতে পারে নানান জায়গায়। আপনার আশে পাশের কাছের মানুষদের বুঝিয়ে বলুন আপনার স্বপ্নের কথা। আপনার স্বপ্নময় চোখ দেখেই তারা দেখবেন ঠিক এগিয়ে আসবে। এছাড়াও বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান থেকেও আপনি সহয়তা পেতে পারেন। কর্মসংস্থান ব্যাংক এ কেবল ব্যবসায়িক আইডিয়া, সাফল্যের সম্ভাবনা এবং বিশ্ববিদ্যালয় এর সনদ জমা দিলেই মিলবে স্বল্প কিম্বা মাঝারি ধরনের পুঁজি। এছাড়াও আছে এসএমই ফাউন্ডেশন , পিকেএসএফ, বিভিন্ন ভেঞ্চার ক্যাপিটালিষ্ট কোম্পানি।

প্রশিক্ষণও আপনি বিভিন্ন জায়গা থেকে নিতে পারেন। সেটা হতে পারে অনলাইন কিম্বা সরাসরি।  যেমন ইউল্যাব এবং স্টার্টআপ ঢাকা যৌথভাবে অনলাইনে কোর্স করিয়ে থাকে। নর্থ সাউথ, ড্যাফোডিল, এআইউবি এর মত কিছু বিশ্ববিদ্যালয় স্টার্টআপ নিয়ে কাজ করা সপ্নবাজ তরুণদের সফলতা নিয়ে কাজ করছে। এছাড়াও বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশন বিভিন্ন মেয়াদে তরুণদের প্রশিক্ষণ সহয়তা দিচ্ছে। বিসিক থেকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হলে বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান সহজে ঋণ দেয়।

পরিশেষেঃ

ভারতের সাবেক  রাষ্ট্রপতি এ. পি. জে. আবদুল কালাম বলেছেন কোন জাতির পড়ালেখার উদ্দেশ্য যতদিন হবে চাকরি যোগার করা ঐ জাতি ততদিন পর্যন্ত কেবল চাকরই তৈরি করে যাবে। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত যখন পৃথিবীর বাঘা বাঘা কোম্পানির নেতৃত্ব দিচ্ছে, নিজেরাই নতুন নতুন ধারনা নিয়ে আসছে, তখন আমাদের দেশের তরুণরা সাধারন একটা চাকরি ছাড়া কিছুই ভাবতে পারছে না।  বিশ্ব দরবারে তাই মাথা তুলে দারাতে তাই আমাদের এই ধ্যান ধারনা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।

ছবিঃ  The Independent